“নতুন নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার ও সচেতনতা বৃদ্ধিতে সামিটগুলো গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে” - বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

“নতুন নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার ও সচেতনতা বৃদ্ধিতে সামিটগুলো গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে” - বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা-১২.০৭.২০১৭

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, নতুন নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার ও সচেতনতা বৃদ্ধিতে সামিটগুলো গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টি করে। বাংলাদেশের বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত দিনে দিনে বড় হচ্ছে। বিনিয়োগের সুযোগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিদ্যুৎ উৎপাদন, সঞ্চালন, বিতরণে ৮৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগে প্রায় ৪০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। প্রি-পেমেন্ট মিটার ও নবায়নযোগ্য জ্বালানিতেও লাভজনক বিনিয়োগ করার অবকাঠামো তৈরি হয়েছে। 
প্রতিমন্ত্রী, আজ সোনারগাও হোটেলে ‘পাওয়ার সামিট ২০১৭’- এর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। সামিটটিতে ২০টি দেশের প্রায় ২০০ জন প্রতিনিধি অংশ গ্রহণ করেছে। সামিটে সরকারি নীতিমালা ও ভিশন ২০৩০, বিদ্যুৎ উৎপাদনের  বহুমূখিতা ও নতুনত্ব, নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও পল্লী বিদ্যুৎ, বিনিয়োগ ফ্রেমওয়ার্ক জ্বালানি দক্ষতা ও ডিজিটাল ব্যবহার, স্মার্ট গ্রীড, সঞ্চালন ও বিতরণ, ইঞ্জিনিয়ারিং ও অপারেশন এবং মেইনটেন্যান্স কৌশল নিয়ে আলোচনা হয়।  

প্রতিমন্ত্রী অনুষ্ঠানে, বিদ্যুৎ ও জ্বালানির অ্যাপলাইনসগুলোর দক্ষতা বৃদ্ধি ও দক্ষ ব্যবহারের উপরে গুরুত্বারোপ করে বলেন, ২০২১ সালের ভিতর ডিজিপির ৩৮% বৈদেশিক বিনিয়োগ হতে আসা প্রয়োজন। এ সময় তিনি বলেন, বিনিয়োগকে উৎসাহিত করতে ১৫ বৎসর পর্যন্ত ট্যাক্স হলিডে, বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও যন্ত্রপাতি আমদানিতে কাস্টমস, ভ্যাট ও অন্যান্য কর মওকুফ, ডাবল ট্যাক্সেশন বাদ, আয় সরাসরি দেশে প্রেরণ ইত্যাদি সুবিধাসহ ক্যাপাসিটি চার্ট ও এনার্জি চার্ট, রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা ও প্রণোদনা প্রদান করা হয়। তিনি সংশ্লিষ্টদের বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে আরো বিনিয়োগ করতে আহ্বান জানিয়ে   বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে বিভিন্ন ক্ষেত্রগুলো উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে শিল্প কল-কারখানায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রদানের জন্য আরো ৩৫০০ এমএমসিএফডি গ্যাস লাগবে। 

এ সামিটি মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সৈয়দ মুনির খসরু ও মডারেটর ছিলেন এনার্জি এন্ড পাওয়ার ম্যাগাজিনের সম্পাদক মোল্লা এম আমজাদ হোসাইন।  
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে পাওয়ার সেলের ডিজি মোহাম্মদ হোসাইন ও স্রেডার সদস্য সিদ্দিক জোবায়ের বক্তব্য রাখেন।