“২০৪১ সালে বাংলাদেশ হবে উন্নত সমৃদ্ধ একটি দেশ” - বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

“২০৪১ সালে বাংলাদেশ হবে উন্নত সমৃদ্ধ একটি দেশ” - বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

থাইল্যান্ড-১৮.০৫.২০১৭

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, ২০৪১ সালে বাংলাদশ হবে উন্নত সমৃদ্ধ একটি দেশ। বাংলাদেশের ডিজিপি স্থিতিশীলভাবেই ক্রম বর্ধমান। ডেমোগ্রাফিক ডেভিডেন্ড এর জন্য স্বল্প মূল্যে শ্রম, প্রযুক্তি ব্যবহার বৃদ্ধি, বিদ্যুৎ ও জ্বালানির নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ এবং সর্বোপরি শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্ব বাংলাদেশকে উন্নত দেশে পরিনত করবে। 

প্রতিমন্ত্রী, আজ থাইল্যান্ডে স্ক্যাপের ৭৩ তম কমিশন সেশনে “ Regional Co-operation for Sustainable Energy” শীর্ষক মন্ত্রী পর্যায়ের গোলটেবিল বৈঠকে প্যানালিষ্ট হিসেবে আলোচনা কালে এসব কথা বলেন। টুভ্যালু প্রধানমন্ত্রী ইনেলে সুসেনে সুপুয়াগা (Enele Sosene Sopoaga) ‘র সভাপতিত্বে ও শ্রীলংকার বিদ্যুৎ ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি উপমন্ত্রী অজিদ পি. পেরেরা (Ajith P. Perera) ‘র সঞ্চালনায় এ গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। 

প্রতিমন্ত্রী এ সময় আঞ্চলিক সহযোগিতার উপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, বাংলাদেশ ভারত থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করছে। বাংলাদেশ-ভুটান-নেপাল-ভারত করিডোর নিয়ে আলোচনা চলছে। মূল কথা হলো পরস্পরের মধ্যে কানেকটিভিটি যত বাড়ানো যাবে দেশ তত দ্রুত উন্নত হবে। এশিয়া ও প্যাসেফিক অঞ্চলে কানেকটিভিটি বাড়াতে স্কাপ সমন্বয়কের ভুমিকা পালন করতে পারে।   

এশিয়া এবং প্যাসেফিক অঞ্চলে জ্বালানির সার্বজনিন প্রবেশ, নাবায়নযোগ্য জ্বালানির শেয়ারিং এবং জ্বালানি দক্ষতাকে অগ্রাধিকার দিতে এ মন্ত্রী পর্যায়ের সভা অনুষ্ঠিত হয়। জ্বালনির চাহিদা বৃদ্ধি, সামাজিক ও আঞ্চলিক প্যাটার্ন পরিবর্তন, জ্বালানির চাহিদা ও যোগানের মধ্যে ভারসাম্য এবং কার্বনমুক্ত জ্বালানি খাত সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি নিয়ে আলোচনা করা হয়। জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা  (বিশেষ করে গোল-৭) এবং জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত প্যারিস চুক্তিকে সামনে রেখেই এ গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।